Saturday, March 12, 2011

বুয়েটে রাজনৈতিক সন্ত্রাস প্রতিহত করুন

সনি হত্যা

২০০২ সালের জুন মাসের দ্বিতীয় শনিবার; টেণ্ডার নিয়ে ছাত্রদলের দুই বিবাদমান পক্ষের গোলাগুলিতে নিহত কেমিকৌশল বিভাগের এক ছাত্রী; বুয়েট অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা, আমরা পেলাম বিশ্বকাপ ফুটবল দেখার অবসর; চান্সে খালেদা জিয়ার আদরের মুকি-টগর পাগাড়পার; সন্ত্রাসবিরোধী ছাত্র ঐক্য সংগঠিত হলো; মিছিল হলো, অনশন কার্যক্রম, ক্লাশ বর্জন, এর পর? এর পর একদিন দুপুরে অনশনরত ছাত্রদের শরীর থেকে স্যালাইন টেনে ছিঁড়ে ফেলা হলো, ঐ অবস্থাতেই মার দেয়া হলো কয়েকজন কে; সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের বিপরীতে উপহার? আবারো সন্ত্রাস। আবারো বুয়েট বন্ধ অনির্দিষ্টকালের জন্য।


দুর্গাপুজার ছুটি ও অন্যান্য

বুয়েট ভিসি বললেন, ঐ দুইচারজন মাইনরিটির জন্য ছুটি দেয়া যাবে না; ছাত্ররা আন্দোলনে, ছুটি ঘোষণা; অন্তে ছাত্রদলের মাস্তানদের চান্সে প্যাঁদায় কারা যেন(লীগ ইত্যাদি...) ; পরের দিন হলের ডাইনিং থেকে তুলে এনে প্রতিশোধ, চিপায় চাপায় মাইর, শোধ-বোধ! আমার মনে পড়ে, ছাত্রদলের ছেলেদের একটা স্মরণীয় উক্তিঃ ছুটি তো দিলাম, আর কি চাস তরা? এছাড়া বিভিন্ন ব্যাচ এর র‍্যাগ-লেভেল কম্পলেশন ইত্যাদি প্রোগ্রামের কথা বাদই দিলাম, ঐগুলি তো সরাসরি পকেটে...অধিকার আছে না! ক্ষমতাসীনের লেঙ্গুর বলে কথা।


চাঁদাবাজি

বুয়েটের সেন্ট্রাল ক্যাফেটেরিয়া থেকে শুরু করে আহসানউল্লাহ-নজরুলের ক্যান্টিন, হলের দোকানগুলি তে, ত্যানা(বড় রাজনৈতিক দলগুলির ডুমা) রা এমনকি পলাশীতে মাছ নিয়া বসে যে মূর্খ লোকটা আর ভাবতে থাকে “স্যারেরা দেশের বড় বড় ম্যাগনেট(?)”, তার কাছ থেকেও মাছ নিয়ে আসে, এক দোকানদার এর কাছে গেলাম র‍্যাগ এর প্রোগ্রামের সময়, “স্যার আপনাদের হলের অমুক ভাই(ছাত্রদলের নেতা) এর কাছে মশলার টাকা টা...”। ছাত্রলীগের এক পাঁতি(ইনি আবার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক) বছর খানেক আগে পত্রিকার খবরেও চলে আসছিলেন [১]। সাবাশ বুয়েটিয়ান! সোনার মুকুটে যুক্ত হচ্ছে একের পর এক সাফল্যের পালক। এলামনাই এসোসিয়েশনের উদ্বৃত্ত টাকার দাবি, “স্যার ২৬ লাখ টাকা কি আপনি একাই খাবেন, না আমাদের ভাগ দেবেন? [২]”

এই ঘটনা যদি সত্য হয়, তাহলে আমার মনে প্রশ্ন জাগে বুয়েটের উপাচার্য পদালংকার যিনি করছেন, তিনি কি দ্বিপদী নাকি চতুষ্পদী? এও সেই আঙ্গুলীয় হেলনে লেঙ্গুরীয় দোলানোর রাজনীতি, কি শিক্ষক, কি ছাত্র, আবারো অভিনন্দন!


সাম্প্রতিক বয়ান

পাঁচ তারিখে লীগের কর্মীরা প্রতিপক্ষ ফ্রন্টের নেতাকর্মীদের মারধর করে পাঠিয়ে দেয় বুয়েট মেডিক্যাল সেন্টারে। কি কারণ? “টেন্ডারবাজি ও চাঁদাবাজিবিরোধী” পোস্টার। এটা ঘটে শনিবার দুপুরে। ক্যাফেটেরিয়া তে। এর পর?[৩] নজরুল ইসলাম হল ও রশীদ হলের ফ্রণ্টের কর্মীদের রুমে ভাংচুর! পরের দিন সকালে নাস্তা করতে গিয়ে একই নেতা-কর্মীরা(গৌতম, মামুন, ...) আবার মারধরের স্বীকার এবং ক্যম্পাস ছাড়ার হুমকি। প্রশাসন কই? প্রশাসন এর আশ্বাস, “তোমরা সম্পূর্ণ নিরাপদ, সন্ত্রাসীদের ব্যবস্থা নেয়া হবে, তোমরা হলেই থাকো!” ফলাফল? সাত তারিখ রাতে ক্যান্টিনে আবার। বর্ণনা পড়ুনঃ

গতকাল ৭ মার্চ রাত সাড়ে ১০টায় আহসান উল্লাহ হল কেন্টিনে খেতে গেলে ছাত্রলীগ সন্ত্রাসী রনক আহসানের নেতৃত্বে মাছুম, সোয়েব, ওয়ালিদ, জিয়াসহ প্রায় ২০/২৫ জন বহিরাগত সন্ত্রাসীরা লোহার রড, হকিস্টিক, লাঠিসহ হামলা করে গৌতম কুমার দে এবং মামুন মোর্শেদকে মারাত্বক ভাবে আহত করে। সন্ত্রাসীরা গৌতম কুমারকে মাটিতে ফেলে নির্মমভাবে মারতে থাকে। এক পর্যায়ে অজ্ঞান হয়ে গেলে মৃত মনে করে তারা চলে যায়। আশাঙ্কাজনক অবস্থায় তাদেরকে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। বুয়েট থেকে ঢাকা মেডিকেলের রাস্তা ৫ মিনিটের রাস্তা হলেও বারবার ফোন করার পরও ভিসি, ছাত্র কল্যাণ পরিচালক প্রায় ২ ঘন্টা পর সেখানে উপস্থিত হন। সেখানেও কর্তৃপক্ষের কথায় সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে তাদের অসহায়ত্বের কথাই বারবার ফুটে ওঠে। কর্তৃপক্ষের এই নতজানু অবস্থান এবং কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণে দায়িত্বহীনতার পরিচয়ের কারণে এই বর্বর ঘটনাটি ঘটে।[৪]

এখানেই কি শেষ? পরের দিন আবার পলাশীর মোড় থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ফ্রন্ট কর্মীকে মেরে হাসপাতালে প্রেরণ।

এইবার?

সন্ত্রাস বিরোধী ছাত্র ঐক্য গঠিত হবে? কিন্তু এবার তো কেউ মরে নাই! কেউ কেউ বলে, রাজনীতি নিষিদ্ধ করা হোক! কেউ আবার আবার ‘ফ্রণ্টেরই তো দোষ, এরাই সবসময় গ্যানজামের চান্স খুঁজে!’ শেখমুজিব কে নিয়ে বাজে কথাও নাকি লেখা আছে গৌতমের ডায়েরীতে। সে ডায়েরী যারা পড়েছে, তারা অন্তত ডায়েরী চুরির অভিযোগ থেকে রক্ষা পায় না।

তাহলে এবার কি করা যায়? আশু দাবি ২ টা, এক ভাংচুর ইত্যাদির ক্ষতিপূরণ প্রদান, জড়িতদের একাডেমিক শাস্তির ব্যবস্থা। ব্যবস্থা নিবে কে? প্রশাসন তো নিজের লেজ সামলাতেই ব্যস্ত!


সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা এবং

মোশাহিদা সুলতানা ঋতুর[৫] লেখা টা থেকে এইটুকু কোট না করে পারছি না,

শিক্ষাঙ্গনে সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক পরিবেশ রক্ষার জন্য ছাত্রদের এই লড়াইকে সম্মান জানিয়ে আমরা চাই সন্ত্রাসীদের শাস্তি ও বিচার | সারা দেশবাসীর প্রয়োজন এই সব অকুতোভয় ছাত্রদের পাশে দাড়ানো | চার দিন ধরে ঘটে যাওয়া সন্ত্রাসী তত্পরতার বিরুদ্ধে জোরালো অবস্থান না নিয়ে বুয়েট প্রশাসন যেই নির্লিপ্ততার নমুনা আমাদের সামনে হাজির করেছে তা আবারও প্রমাণ করে আমাদের ছাত্রদের মধ্যে হীনম্মন্যতার বীজ বপণ করার জন্য দায়ী আমাদের প্রশাসন এবং আমাদের রাজনৈতিক ব্যবস্থা | আমাদের ক্যাম্পাসকে সন্ত্রাস-চাঁদাবাজি-দখলদারিত্ব মুক্ত করতে হলে নিষ্ক্রিয় প্রশাসনকে সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে বাধ্য করতে হবে | যতদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন নিষ্ক্রিয় ভূমিকা পালন করবে ততদিন সারবে না সমাজের মধ্যেকার এই গভীর অসুখ হীনম্মন্যতা।

প্রত্যেকবার কি ঘটে থাকে এবং পরিণতি তে কি হয় আমরা জানি; সনির মৃত্যুদিবস ভুলে গেছে অনেকেই, কিন্তু সেই সন্ত্রাসী মুকি-টগর এখনো ধরাধামেই আছে; আমাদের হীনমন্যতার প্রশ্রয় পেয়েই এরা টিকে ছিল, টিকে থাকে; এখনই সময়, এদের চিনে রাখি, এদের প্রতিহত করতে শুরু করি।

[১] http://www.prothom-alo.com/detail/date/2010-02-25/news/44906

[২] http://www.facebook.com/notes/sadat-hasan/%E0%A6%AC%E0%A7%81%E0%A7%9F%E0%A7%87%E0%A6%9F%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%AE%E0%A6%A4%E0%A7%8B-%E0%A6%86%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%95%E0%A6%9F%E0%A6%BF-%E0%A6%B6%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B7%E0%A6%BE%E0%A6%99%E0%A7%8D%E0%A6%97%EF%BF%BD%EF%BF%BD/10150122372992840

[৩] http://www.bdnews24.com/bangla/details.php?id=151802&cid=3

[৪] http://move4world.com/?p=1060

[৫]http://opinion.bdnews24.com/bangla/2011/03/09/%E0%A6%B8%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%B8-%E0%A6%B9%E0%A7%80%E0%A6%A8%E0%A6%AE%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%A4%E0%A6%BE-%E0%A6%93-%E0%A6%B8%E0%A7%81%E0%A6%B6/

1 comment:

BEE IT said...

Nice posting. I support to stop politics in BUET.